পড়শি বসত করে

লেখক মিদহাদ আহমদ

প্রকাশক পাপড়ি

পৃথিবীর অনিকেত মানুষগুলোর জন্যই দুনিয়া যতসব কর্কশ দৃশ্য ধরে রাখে। এই যেমন আমাদের গল্পের সাহেব! মধ্যবিত্ত স্কুল মাস্টারের কাছে পৃথিবীর একটি হারিয়ে যাওয়া দিক উন্মোচিত হয় ছাত্রের মাধ্যমে। ছাত্র তানিশার ছেলে। তানিশা কে? সে এক গল্প। শুধু এতটুকু বলা যায় সাধারণ গাল্পিকতা ছাড়িয়ে বহুদূর অবধি এই গল্পের বিস্তৃতি। দরকার ছিল না এই গল্পের, প্রয়োজন ছিল না তানিশার হঠাৎ আবির্ভাবের! কিন্তু পৃথিবীর কত ঘটনাই তো ঘটে প্রয়োজন ছাড়া। চেনাজানা গণ্ডির অচেনা আবিস্কারেই তো ভরে ওঠে মানুষের অন্তরের তাকগুলো। গল্পের সাহেবের বেলায়ও তাই ঘটেছে। হৃদয় ছুঁয়ে যাওয়া এই উপন্যাস লেখক হিসেবে আত্মপ্রকাশের পর মিদহাদ আহমদের দ্বিতীয় উপন্যাস। পড়শী বসত করে পাঠকের হৃদয় জয় করে নেবে বলেই আশাবাদ ব্যক্ত করছি। জীবন অভিজ্ঞতা বলে এরকম পড়শীদের বসত করতে হয়। এরা বসত করে। পুরো উপন্যাসে শারীরিক উপস্তিতি না থাকা সত্ত্বেও তানিশার এরূপ উপস্থিতি ও উপস্থিত লেখকের সৃজনশীলতা ও দক্ষতারই পরিচায়ক। লেখকের সামনের দিনগুলো মসৃণ হোক। 

৳ 126
No review yet

পৃথিবীর অনিকেত মানুষগুলোর জন্যই দুনিয়া যতসব কর্কশ দৃশ্য ধরে রাখে। এই যেমন আমাদের গল্পের সাহেব! মধ্যবিত্ত স্কুল মাস্টারের কাছে পৃথিবীর একটি হারিয়ে যাওয়া দিক উন্মোচিত হয় ছাত্রের মাধ্যমে। ছাত্র তানিশার ছেলে। তানিশা কে? সে এক গল্প। শুধু এতটুকু বলা যায় সাধারণ গাল্পিকতা ছাড়িয়ে বহুদূর অবধি এই গল্পের বিস্তৃতি। দরকার ছিল না এই গল্পের, প্রয়োজন ছিল না তানিশার হঠাৎ আবির্ভাবের! কিন্তু পৃথিবীর কত ঘটনাই তো ঘটে প্রয়োজন ছাড়া। চেনাজানা গণ্ডির অচেনা আবিস্কারেই তো ভরে ওঠে মানুষের অন্তরের তাকগুলো। গল্পের সাহেবের বেলায়ও তাই ঘটেছে। হৃদয় ছুঁয়ে যাওয়া এই উপন্যাস লেখক হিসেবে আত্মপ্রকাশের পর মিদহাদ আহমদের দ্বিতীয় উপন্যাস। পড়শী বসত করে পাঠকের হৃদয় জয় করে নেবে বলেই আশাবাদ ব্যক্ত করছি। জীবন অভিজ্ঞতা বলে এরকম পড়শীদের বসত করতে হয়। এরা বসত করে। পুরো উপন্যাসে শারীরিক উপস্তিতি না থাকা সত্ত্বেও তানিশার এরূপ উপস্থিতি ও উপস্থিত লেখকের সৃজনশীলতা ও দক্ষতারই পরিচায়ক। লেখকের সামনের দিনগুলো মসৃণ হোক। 

Title পড়শি বসত করে
Author মিদহাদ আহমদ
Publisher পাপড়ি প্রকাশ
ISBN 9789845860055
Edition 1st Published, 2020
Number of Pages 80
Country বাংলাদেশ
Language বাংলা

মিদহাদ আহমদের জন্ম ২০০১ সালের ৫ নভেম্বর সিলেটে। বাবা আলী আহমদ ও মা রুজি বেগম। তরুণ এই লেখকের পড়াশোনা জালাবাদ ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজে। ২০২০ সালের ইন্টারমিডিয়েট পরীক্ষার্থী মিদহাদ আহমদ লেখালেখির জগতে বিচরণ করছেন দুরন্ত গতিতেই। পড়াশোনায় যেমন মেধাবী তেমনি লেখালেখিতে। তার ভালো লাগে আবৃত্তি করতে ও রবীন্দ্র সংগীত শুনতে। ছবি এঁকে আর গাছের পরিচর্যা করে অবসর কাটান। 

ইতোমধ্যে আপন বৃদ্ধাশ্রম এবং পড়শী বসত করে উপন্যাসদ্বয় মিদহাদ আহমদকে লেখালেখির জগতে দিয়েছে নতুন এক মাত্রা।